শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর জাপানে সুনামি

0
7

জাপানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আবারও শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়েছে, কয়েকটি স্থানে সাড়ে চার ফুট উচ্চতার সুমানির খবর এসেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ‌্যমে।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় ভোর ৬টায় (বাংলাদেশ সময় রাত ৩টা) ফুকুশিমা, মিয়াগি, চিবা, আমোরি, আওতে, ইবারাকি প্রদেশ এই ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ দপ্তর ইউএসজিএস জানিয়েছে, এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৬.৯। তবে জাপানের আবহাওয়া অধিদপ্তর ৭.৪ মাত্রার কথা বলেছে।

শক্তিশালী ওই ভূমিকম্পের পরের চার ঘণ্টায় ৪.৪ থেকে ৫.৪ মাত্রার অন্তত ১০টি পরাঘাত রেকর্ড করে ইউএসজিএস।

শক্তিশালী ভূমিকম্পের পরপরই জাপানে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়। দুই ঘণ্টা পর সকাল ৮টার দিকে সেন্দায় অঞ্চলে ১ দশমিক ৪ মিটার উচ্চতার (সাড়ে ৪ ফুট) সুনামি রেকর্ড করা হয় বলে খবর দেয় জাপান টাইমস।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এনএইচকে জানায়, সোমা বন্দর এলাকায় ৯০ সেন্টিমিটার সুনামি রেকর্ড করা হয়। ফুকুশিমা প্রদেশ থেকে প্রায় ৬৮ হাজার মানুষকে সরিয়ে নিতে স্থানীয় সিটি করপোরেশনের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরাও কাজ শুরু করেন।

দুর্গত এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ রাখা হয় ট্রেন ও বিমান যোগাযোগ।

জাপান সরকারের মুখপাত্র ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়াসুদা সুগা সকালে টোকিওতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সরকার তাৎক্ষণিকভাবে সব ধরনের ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে। জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে ভূমিকম্প দুর্গত এলাকাগুলোতে।

ভূমিকম্পের কয়েকঘণ্টা পর সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহার করে নেয়া হলেও উপকূলীয় এলাকার বাসিন্দাদের পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়।

ভূমিকম্পের সময় রাজধানী টোকিওর ১০০ কিলোমিটার দূরেও বড় ধরনের ঝাঁকুনি অনুভূত হয় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি। কোনো কোনো এলাকায় ভবনগুলো অন্তত ৩০ সেকেন্ড ধরে কেঁপেছে বলে বাসিন্দারা জানিয়েছেন।

ভূমিকম্পের সময় ফুকুশিমা অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন বন্দরে থাকা জাহাজগুলোকে দূরে সরে যেতে দেখা যায়। নিশান কর্তৃপক্ষ ফুকুশিমায় তাদের ইঞ্জিন ফ্যাক্টরির কাজ বন্ধ করে সুনামি সতর্কতা উঠে যাওয়া পর্যন্ত শ্রমিকদের নিরাপদ দূরত্বে সরে যেতে নির্দেশ দেয়।
ভূমিকম্প ও সুনামিতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ‘সামান্য’ বলে জানিয়েছেন জাপানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী জুন মাতসুমতো। তিনি বলেন, ভূমিকম্পের পর চার ঘণ্টায় হতাহতের কোনো খবর তারা পাননি।

গত এপ্রিলে ৬ দশমিক ৫ ও ৭ দশমিক ৩ মাত্রার ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সাড়ে তিন লাখ বাসিন্দার কুমামতো প্রদেশ। ওই দুই দফাভূমিকম্পে ৪৯ জন নিহত হন। কয়েকদিন আগে নিউ জিল্যান্ডেও ৫.৬ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হানে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here