রামপাল নিয়ে আন্দোলন বিভ্রান্তিমূলক ও ভিত্তিহীন – প্রতিমন্ত্রী

0
3

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে যে আন্দোলন করা হচ্ছে তা বিভ্রান্তিমূলক ও ভিত্তিহীন।
সোমবার রাজধানির বিদ্যুৎ ভবনের মুক্তিহলে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাগেরহাটের রামপালের নিমিতব্য কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি দেশের উন্নয়নে নতুন দিগন্ত উন্মোচনকারী প্রকল্প। কিন্তু একটি মহল ও কতিপয় ব্যক্তি, গোষ্টি সংগঠন বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার ও কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে। তারা নানা রকম প্রতিবেদন প্রকাশ করছে। যেগুলো অনেকটা কাল্পনিক। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে সুন্দরবন নিরাপদ দূরে অবস্থিত। ইউনেস্কো হেরিটেজ থেকে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি প্রায় ৬৯ কিলোমিটার দহৃরে। অথচ দেশের স্বার্থ বিরোধী ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতাকে বাধাগ্রস্থ করতে একটি মহল অপ্রপ্রয়াস চালাচ্ছে। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি অত্যাধুনিক হবে। এখানে পরিবেশ দূষনের কোন সুযোগই নেই। এখানে ব্যবহারের জন্য কয়লা আমদানি করা হবে জাহাজে আবৃত অবস্থায়। এছাড়া সুন্দরবনের ক্ষতি হয় এমন কোন চ্যানেলে জাহাজ চলাচল করতে দেয়া হবে না।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থার সুষম উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের স্থান নির্বাচন করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মুহাম্মদ হোসাইন, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান কে এম হাসান, বাংলাদেশ-ভারত ফ্রেন্ডশীপ পাওয়ার কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক উজ্জল কান্তি ভট্রাচার্য্য, ড. আনসারুল করিম ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক মো. শাহজাহান উপস্থিত ছিলেন।
উজ্জল কান্তি ভট্রাচার্য্য বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উপর নির্ভরশীল।  পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ প্রাথমিক জ্বালানি হিসেবে কয়লাকে ব্যবহার করে আসছে। সেখানে বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়ছে।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে সুন্দরবনের কোনো ক্ষতি হবে না। মাটি, পানি এমনকি বাতাসেও কয়লা দিয়ে দূষণ যাতে না হয় সেজন্য আগে থেকেই নানা ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।  পরিবেশ অধিদপ্তরের ৬৬ শর্ত মেনেই এ কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এসব শর্তের অনেকগুলো বাস্তবায়ন হয়েছে বাকীগুলো নির্মাণ এবং উৎপাদন পর্যায়ে করা হবে। এই কেন্দ্র স্থাপন করতে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা প্রয়োজন হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here